কবিতা: কসম

আবদুল হাই শিকদার

আমি সিরাতুল মুসতাকিমের ভাষায় বলছি,
আমি কোরআন, বেদ, বাইবেল , ত্রিপিটকের উপর হাত রেখে বলছি,
আমি আমাদের উর্বর শস্যক্ষেত্র, নিসর্গ নীলাকাশের নামে বলছি,
আমি উত্তরের একলা নদী দুধকুমারকে স্পর্শ করে বলছি,
আমি আমাদের মহান পূর্বপুরুষদের ত্যাগ ও সংগ্রামের শপথ করে বলছি
আমি আমার সকল সামর্থ্যকে একত্র করে বলছি-

আমার পরম শ্রদ্ধেয় পিতার নাম আমি বদলাতে পারবো না।
আমার মমতাময়ী মায়ের নাম আমি বদলাতে পারবো না।
আমার শৈশবের গ্রামের নাম আমি বদলাতে পারব না।
আমার প্রিয়তম নারীর নাম আমি বদলাতে পারব না।
আমার শিশুর তুলতুলে গাল আমি বদলাতে পারবো না।

যারা আমার মাতৃভূমিকে ব্যর্থ ও অকার্যকর করার জন্য বিছিয়েছে মাকড়সার জাল,
যারা পিটিয়ে পিটিয়ে মানুষ হত্যা করেছে,
যারা ক্ষত-বিক্ষত লাশের উপর হিংস্র উল্লাসে বর্বর নৃত্য করেছে,
যারা ড্রাকুলার মত পান করেছে মানুষের রক্ত,
বিশ্বময় পাঠিয়েছে ভুল ও বীভৎস বার্তা,
তাদের কথায় আমি বদলাতে পারি না।

আমি উত্তরের ভাওয়াইয়ার আকাশকে বদলাতে পারবো না।
জালালের ভাটিয়ালি গান আমি বদলাতে পারবো না।
লালনের একতারা বদলাতে পারবো না।
হাছন রাজার নেশার ঘোর আমি বদলাতে পারবো না।
আমি আব্বাস উদ্দীনের বদলে আদভানিকে ভালোবাসতে পারবো না।
আমি পাগলা কানাইয়ের বদলে পবন দাশকে নিতে পারবো না।

আমি মায়ের বদলে মাসি কিনতে পারবো না।
আমি হীরার বদলে কাঁচ কুড়াতে পারবো না।
আমি দাদীকে দিদা বলতে পারবো না।
আমি পানির বদলে জলপান করতে পারবো না।

আমি কপোতাক্ষের বদলে ময়ূরাক্ষীকে আপন করতে পারবো না

আমি আড়িয়াল খাঁর বদলে দামোদরকে ভাই বলতে পারবো না
আমি লালবাগের দূর্গের বদলে ফোর্ট ইউলিয়ামকে নিতে পারবো না।
আমি ষাট গম্বুজের বদলে ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল নিতে পারবো না।
আমি পল্টনের বদলে গড়ের মাঠ নিতে পারবো না।
আমি প্রবীর মিত্রের বদলে প্রসেনজিতকে নিতে পারবো না।
আমি ভাই গিরিশ সেনের বদলে গয়াকাশি নিতে পারবো না।
আমি নজরুরের বদলে নরেন্দ্র মোদীকে নিতে পারবো না।

আমি শেরে বাংলার বদলে মহাত্মা গান্ধিকে নিতে পারবো না।
আমি ভাসানীর বদলে ভক্ত প্রহল্লাদ সাজতে পারবো না।
আমি হোসেনী দালানের বদলে হাওড়া ব্রিজ দেখতে পারবো না।
আমি সোনারগাঁর বদলে সোনাগাছি যেতে পারবো না।

শরীয়ুতুল্লাহর বদলে শিয়ালদা, কিছুতেই নয়।
শমশের গাজীর বদলে শরীর, কিছুতেই নয়।
শাহজালালের বদলে শবরমতী কিছুতেই নয়।
রমনার বদলে রাজঘাট কিছুতেই নয়।
কুমিল্লার বদলে কলকাতা নিতে পারবো না।
আমি ঢাকার বদলে দিল্লিকে প্রণাম করতে পারবো না।

আমি ‘পদ্মা, মেঘনা, যমুনা’র বদলে ‘সেই সময়’ নিতে পারবো না।
আমি আবু আবু জাফর শামসুদ্দীনের বদলে সুনীলকে নিতে পারবো না।
আমি বিষাদ সিন্ধুর বদলে সুধা সিন্ধু নিতে পারবো না।
আমি মৈমনসিংহ গীতিকার বদলে গাদ্দার নিতে পারবো না।
আমি দীনেশ সেনের বদলে মূর্তিমান প্রলোভন নিতে পারবো না।

আমি শালগাছের বদলে শালা বানচোতদের বাগান করতে পারবো না।
আমি সুন্দরবনের বদলে সুমুন্ধির পুতকে বুকে নিতে পারবো না।
আমি ‘দাবায়ে রাখতে পারবা না’র বদলে  ‘দাবিয়ে রাখতে পারবেনা’ বলতে পারবো না।
আমি স্বাধীনতার ঘোষকের বদলে আদালত পাড়ার দৈ বড়া খেতে পারবো না।

আমি পরিষ্কারভাবে বলছি,
আমি সকল পবিত্রতার অঙ্গ হয়ে বলছি,
আমি কাজলরেখার বদলে রেখাকে নিযে ঘর বাঁধতে পারবো না।
আমাদের ঐতিহ্যকে ফেলে ঐশ্বরিয়া রাইয়ের পাশে দাঁড়াতে পারবো না।

যারা আমার পদ্মাকে শুষ্কো বালুতে পরিণত করেছে,
যারা টিপাইমুখ দিয়ে আমার কল্লোলিনী মেঘনাকে হত্যা করতে চাচ্ছে,
যারা আমার তারুণ্যকে মাদকাসক্ত করেছে,
যারা আমার বিরুদ্ধে লেলিয়ে দিয়েছে নৃশংস শান্তিবাহিনী,
যারা আমার হৃদয়কে করেছে বিভেদ ও হানাহানিতে নিক্ষেপ,
যারা আমার ভাইকে করেছে ভাইয়ের ঘাতক,
যারা আমার ডান হাতকে লাগিয়েছে বাম হাতের বিরুদ্ধে,
-তাদের কথায় আমি বদলে যেতে পারি না।

আমি আমার লক্ষ লক্ষ শহীদের রক্তে ভেজা নিশানকে ধুলোয় গড়াতে দিতে পারি না।
আমি আমার শহীদ ভাইদের রক্ত চিহ্ন ফেলে শ্বাপদ সন্কুল পথে যেতে পারি না।
আমি আমার স্বাধীনতার বদলে সোনার শিকল গলায় পরতে পারি না।

আমি আমার সেনাবাহিনীকে ভাড়া খাটা বেশ্যায় পরিণত করতে পারি না।
আমি অভিশপ্ত ইসরাইলকে স্বীকৃতি দিতে পারি না।
আমি ওয়াশিংটনের মাস্তানির নিচে মাথা পেতে দিতে পারি না।
আমি তেলআবিবের টাকায় মানবাধিকার পাচার করতে পারি না।
আমি আমেরিকাকে আল্লাহর উপর স্থান দিতে পারি না।

যারা আমার বিডিআরকে ধ্বংস করেছে,
যারা আমার সেনাবাহিনীকে হত্যা করেছে পিলখানায়,
যারা আমার ভাইদের প্রতিদিন হত্যা করছে  সীমান্তে,
যারা আমার মাথার ভিতরে তৈরী করেছে কালচারাল কলোনি,
যারা আমার স্বাধীন মানচিত্রকে করেছে অরক্ষিত,
যারা ন্যায় ও সত্যকে হত্যা করছে প্রতিদিন,
যারা আমার রাত্রির আকাশকে করেছে চাঁদশূন্য,
যারা সূর্যের মুখে ছিটিয়েছে নোংরা বর্জ্য,
যারা আমার জীবন থেকে উধাও করেছে নিরাপত্তা,
যারা আমাদের নিক্ষেপ করেছে অশ্রদ্ধা ও অসহিষ্ণুতায়,
যারা আমাদের প্রতিটি সূর্যোদয়কে করেছে অস্থির ও টালমাটাল-

কসম পলাশীর আম্রকাননের,
কসম ঈশা খাঁর সমরজয়ী অমর তরবারির,
-কসম আল্লাহর, তাদের কথায় আমরা বদলে যেতে পারি না।

আমি মঙ্গাপীড়িত ধরলার ক্ষুধার্ত রোদন ধ্বনীর শপথ করে বলছি,
আমি দক্ষিণে আছড়ে পড়া ক্ষুব্ধ সমুদ্রের গর্জনের কসম খেয়ে বলছি,
আমি মেঘনার প্রতিটি ঢেউয়ের দোলাকে বক্ষে ধারণ করে বলছি,
যারা আমাদের বদলাতে চায়, আমরা তাদের বদলে দেব।
মীরজাফর বিভীষণকে বানাবো মীর মর্দন কিংবা মেঘনাদ।
শয়তানের কাছে আত্মা বিক্রয়কারিদের দেনা শোধ করে,
এই মৃত্তিকায় ফিরিয়ে আনবো,- এই মায়ের পায়ের কাছে।

তারপর বলবো, কেন তুমি আধিপত্যবাদের কাছে হৃদয় বন্ধক দিয়েছিলে?
তারপর বলবো, কেন তুমি খ্যাতি ও প্রতিপত্তির লোভী?
তারপর বলবো, কেন তুমি সিংহাসন এবং সিংহাসন?

দ্যাখো এই মাটি আমার মায়ের পবিত্র জায়নামাজ।
দ্যাখো এই মাটি আমাদের প্রপিতামহদের ত্যাগের কথা বলে।
দ্যাখো এই মাটি তিতুমীরের মত টকটকে লাল।

এবার বলো কেন তুমি তোমার ভাইকে সাম্প্রদায়িক বলেছো?
এবার বলো কেন তুমি সমঝোতা ও সম্প্রীতির বদলে
ঘৃনা এবং হানাহানিকে মোক্ষ জ্ঞান করছো?
এবার বলো কেন তুমি তোমার মাকে কালিমা মলিন করেছো?

তারপর আমরা আমাদের সম্মিলিত পাপ যমুনার জলে বিসর্জন দেব।
ঘৃনায় ক্ষোভে যমুনা প্রত্যাখ্যান করলে,
এই পাপকে আমরা পাঠাব মৃত্তিকার গহ্ববরে,
লাঞ্চিত মৃত্তিকা বমির মত উগরে দিলে,
নক্ষত্রলোক থেকে এই পাপ নামিয়ে আনবো ধুলিতে।
তারপর এই পাপ ৫৬ হাজার বর্গমাইলের বাইরে পাঠাবো।
তারপর এই পাপ বস্তাবন্দি করো পাঠিয়ে দেব আধিপত্যবাদের উঠানে।

তারপর বলবো এই পাপ ধারণ করার জন্য আমার মাতৃভূমি প্রস্তুত নয়।

কসম সালাম বরকত রফিক জব্বারের,
কসম ১৯৭১ সালের,
কসম কর্ণফুলীর তীরে অপেক্ষমান আমাদের ভবিষ্যতের,
কসম শাহজালালের আজান ধ্বনীর,
কসম আমার মন্দির মসজিদ গির্জা প্যাগোডার,
কসম লক্ষ লক্ষ শহীদের প্রতি ফোঁটা রক্তের,
কসম কসম কসম আমরা এইসব করবো।

তারপর জমজমের পানিতে ধুয়ে নেব মাতৃভূমির শ্রান্ত ক্লান্ত ব্যথিত শরীর।

প্রকাশকালঃ অক্টোবর ২০১০

 

ভিডিও লিংক

Next Barisal banner ads

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *