জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ : পর্ব ৮

 

জঙ্গি রাজা গণেশের গণহত্যা 

রাজা গণেশ (১৪১০-১৪১৭) গিয়াসউদ্দিন আজম শাহ, তাঁর পুত্র সাইফুদ্দিন হামজা শাহ, তদীয় পুত্র মুহাম্মাদ শাহ, শিহাবউদ্দিন বায়েজিদ শাহ, আলাউদ্দিন ফিরোজ শাহ- এই পাঁচ জন মুসলিম সুলতানকে পর্যায়ক্রমে খুন করে বাংলার সিংহাসন দখল করে ১৪১০ সালে। (সুখময় মুখোপাধ্যায়: বাংলার ইতিহাস, পৃ ২৬৭-২৭৩) কংস গণেশ ক্ষমতারোহনের সাথে সাথে মুসলিম সুফি সাধক ও দরবেশদের কঠোর হাতে দমন করেন। পাণ্ডুয়ার নামজাদা দরবেশ বদর উল ইসলামকে হত্যা করেন গণেশ বা কংস। একই দিনে পাণ্ডুয়ার অন্যান্য দরবেশকে পানিতে ডুবিয়ে বধ করা হয় গণেশের হুকুমে। সম্রাট আকবর ও জাহাঙ্গিরের সভাসদ মুল্লা তকিয়ার লেখা বয়াজ থেকে জানা যায়, ‘যখন হিন্দু জমিদার কানস সমগ্র বাংলা প্রদেশের উপর আধিপত্য অর্জন করলেন, তিনি মুসলমানদের নিশ্চিহ্ন করার সংকল্প করলেন এবং তার রাজ্য থেকে ইসলাম মূলোচ্ছেদ করাই হয়ে দাঁড়ায় তাঁর লক্ষ্য।’ (সুখময় মুখোপাধ্যায়: বাংলার ইতিহাস, পৃ ২৮২-২৮৬)

ফ্রান্সে দানবীয় উল্লম্ফণ

ইউরোপর ইতিহাস মাত্রই রক্তহানির ইতিহাস, জীবনহানির ইতিহাস। ১৫৬২ সালে ফ্রান্সের ভ্যাসিতে গাইজের (ক্যাথলিক) সৈন্যরা গির্জায় ঢুকে উপাসনারত সকল উগারাদের হত্যা করে। ১৫৭২ সালের আগস্টে ফ্রান্সে উগানোদের ওপর নরনিধন যজ্ঞ সংঘটিত হয়। শুধু প্যারিসেই ৩-৪ হাজার উগানোকে খুন করা হয়। সকল প্রদেশে চলে হত্যাকা-। ধর্মীয় হাঙ্গামায় তাদের লাশ খ–বিখ- করে ক্যাথলিকরা। ফ্রান্সে ক্যাথলিক ও উগানোদের মধ্যে ৭টি যুদ্ধের পর তাদের বিবাদ নিষ্পত্তি হয়। (এইচ.এ.এল.ফিসার: ইউরোপের ইতিহাস, পৃ ৭৬-৭৯)

Next Barisal banner ads

Leave a Reply

Your email address will not be published.