মন এবং শরীর সুস্থ ও সুন্দর রাখার ২০টি টিপস

ডা. কে. এম. জাহিদুল ইসলাম

আমরা জানি স্বাস্থ্য ভালো না থাকলে মনও ভালো থাকে না। কিন্তু কিভাবে মন ও শরীর সুস্থ রাখতে হবে তা আমাদের অনেকেরই জানা নেই। তাই মন ও শরীর সুস্থ রাখার ২০টি টিপস আপনাদের সামনে তুলে ধরা হলো

১. শরীরের জন্য প্রয়োজন সবকিছুইঃ প্রতিদিন একই ধরনের খাবার কোনভাবেই খাওয়া উচিত নয়। তাই প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় বিভিন্ন রকমের ভিটামিন, মিনারেল এবং প্রোটিনযুক্ত খাবার রাখুন। তাছাড়া খাবারের গুণগত মানটাই বড়, খাবারের পরিমাণ নয়। এই যেমন প্রোটিন শরীরের ওজন না বাড়িয়ে শক্তি সরবরাহ করে, যা কোষের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয়।

২. আঁশযুক্ত খাবারঃ খাবারের তালিকায় যথেষ্ট পরিমাণে আঁশযুক্ত শষ্যদানা রাখুন। বিশেষ করে সকালের নাস্তায় সিরিয়ালের সাথে বিভিন্ন শষ্যদানা, গম, ভুট্টা, ফল এবং দই থাকতে পারে। মৌসুমি ফল খেতে পারেন এতে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়ে।

৩. তাজা ফল এবং শাক-সবজিঃ প্রতিদিন খাবারের তালিকায় শিম, মটরশুনি, বরবটির মত আঁশযুক্ত সবজি ও যথেষ্ট ফল থাকা প্রয়োজন। এ সব শরীরে চিনি নিয়ন্ত্রণে যেমন সাহায্য করে তেমনি হৃদরোগ প্রতিরোধেও ভূমিকা রাখে। বাঁধাকপি, ফুলকপি ক্যানসারের ঝুঁকি কমাতে সহায়ক। যারা ফলমূল এবং শাক সবজি বেশি খান তাদের হাঁপানি বা অ্যালার্জির ঝুঁকিও কম থাকে।

৪. ফাস্টফুডকে ‘না’ বলুনঃ দোকানে তৈরি ‘ফাস্টফুড’ বা ‘রেডিমেড’ খাবার একেবারেই খাওয়া উচিত নয়। এগুলোতে লুকিয়ে থাকে প্রচুর পরিমাণে চিনি এবং নানা রকম ক্ষতিকারক জিনিস। বিজ্ঞানীরা বলেছেন, শিশুদের ক্ষেত্রে ফাস্টফুড হাঁপানি হওয়ার শঙ্কা প্রায় ৪০ শতাংশ বাড়িয়ে দেয়। ৩১টি দেশের শিশুদের ওপর এক গবেষণা করে এ তথ্য জানা গেছে। তাই ছোটবেলা থেকেই স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার অভ্যাস তৈরি করতে হবে।

৫. ব্রেনের জন্য খাবারঃ মানুষের মস্তিষ্কের বিকাশের জন্য প্রয়োজন শর্করা এবং গ্লুকোজ। এটা থাকে বিভিন্ন ফল, রুটি, মিষ্টি আলু, নুডুলস, মাছ-মাংস, কাঠবাদাম প্রভৃতিতে। তাই অল্প পরিমাণে বিভিন্ন ধরনের বাদাম নিয়মিত খাওয়া জরুরি। এতে শরীরের প্রয়োজনীয় মৌলিক উপাদানগুলি রয়েছে।

৬. দুধ বা দুধের তৈরি খাবারঃ প্রতিদিন খাবারের তালিকার দুধ রাখা উচিত। তবে আজকাল অ্যালার্জির কারণে অনেকেই সরাসরি দুধ খেতে পারেন না। সেক্ষেত্রে দুধের তৈরি অন্যকিছু খাওয়া যেতে পারে। দুধে রয়েছে শরীরের জন্য উপকারী ভিটামিন এবং খনিজ পদার্থ। তাই একে সুষম খাদ্যও বলা হয়ে থাকে। এছাড়া সপ্তাহে দুদিন মাছ-মাংস বা ডিম খেলেই যথেষ্ট। সামুদ্রিক মাছে রয়েছে ওমেগা থ্রি , যা বার্ধক্য রোধে সহায়তা করে।

৭. আদা, রসুন ও পেঁয়াজের জুড়ি নেইঃ রান্নায় যতটা সম্ভব কম তেল ব্যবহার করুন। আর যদি সম্ভব হয় সরাসরি উদ্ভিজ্জ তেল ব্যবহার করাই ভালো। উদ্ভিজ্জ খাদ্যে যেমন অল্প পরিমাণে ক্যালরি থাকে তেমনি অন্যদিকে থাকে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন, খনিজ পদার্থ আর ফাইবার।

৮. পানীয় বেশি, লবণ-চিনি কমঃ প্রতিদিন কমপক্ষে দেড় থেকে দুই লিটার পানি পান করা উচিত। তবে মিষ্টি মিশ্রিত পানিয় নয়, অর্থাৎ কোলা, ফান্টা এ জাতীয় পানীয়। লক্ষ্য রাখবেন, চিনির ক্ষেত্রে তা যেন হয় প্রাকৃতিক উপায়ে তৈরি অর্থাৎ ব্রাউন চিনি আর লবণ যেন হয় আয়োডিন যুক্ত।

৯. ধীরে-সুস্থে চিবিয়ে খানঃ খাবার তাড়াহুড়ো করে খেলে বেশি খাওয়ার ভয় থাকে। এতে ওজন বাড়ে এবং তা হজমেও ব্যাঘাত ঘটায়। তাই খাবার ধীরে ধীরে চিবিয়ে খান।

১০. হাঁটুনঃ প্রতিদিন ৩০ মিনিট থেকে ১ ঘণ্টা হাঁটুন। এতে হাত-পায়ে রক্ত চলাচলের পাশাপাশি মুক্ত বাতাসও সেবন হবে, যা ‘ফিট’ থাকতে বিশাল ভূমিকা পালন করে।

১১. ক্রোধ থেকে নিজেকে দূরে রাখুন। এমনভাবে কথা বলুন যাতে কেউ দুঃখ না পায়।

১২. বসার সময় অবশ্যই সোজা হয়ে বসুন। চেয়ারে যখনই বসবেন তখনই বাঁকা না হয়ে সোজা হয়ে বসুন।

১৩. খাবার খাওয়ার সময় ভালো করে চিবিয়ে খাবার খান। এতে করে পাঁচন ক্রিয়া ঠিক থাকে- সঠিকভাবে খাদ্য হজম হয়।

১৪. মিষ্টি জাতীয় খাবার কম খাওয়ার চেষ্টা করুন। কারণ মিষ্টি জাতীয় খাদ্য শরীরকে মোটা করে।

১৫. বেশি করে সবুজ শাক-সবজি আর ফলমূল খান।

১৬. গরমের সময় রাতে শোয়ার আগে গোসল করুন। রাতে গোসল করলে ঘুম ভালো হয়।

১৭. রাতে শোবার আগে ঢিলেঢালা পোশাক পরা ভালো। তাতে শরীরের প্রতিটি অঙ্গ-প্রতঙ্গ ছিদ্রের মধ্য দিয়ে শ্বসন প্রক্রিয়া চালাতে পারে।

১৮. চুলের প্রতি বিশেষ নজর দিতে হবে। কারণ চুল হলো সৌন্দর্যের প্রতীক। সম্ভব হলে সপ্তাহে একদিন হার্বাল শ্যাম্পু ব্যবহার করুন।

১৯. প্রতিদিন অন্তত ১০ থেকে ১৫ মিনিট ধ্যান করুন।

২০. নিজের ঘরের কাজ নিজে করার চেষ্টা করুন। কারণ ব্যস্ত থাকাটা শরীর ও মন দুয়ের জন্যই ভালো। তাই কাজে যতটা সম্ভব ব্যস্ত থাকুন। তাহলে শরীর ও মন দুটোই ভালো থাকবে।

 

 

Next Barisal banner ads

Leave a Reply

Your email address will not be published.